বর্তমানে হোস্টিং ব্যাবহারকারি দের মধ্যে (দামে সুবিধা, বিভিন্ন সহজ ফিচার এবং মোটামুটি ভাবে মান ভালো হওয়ার কারনে) বেশির ভাগ মানুষই নিজেদের ওয়েবসাইটের জন্য শেয়ারড হোস্টিং কিনে থাকেন। কিন্তু শেয়ারড হোস্টিং এ আপনার ওয়েবসাইটসহ আরও অনেক মানুষের ওয়েবসাইট হোস্ট করা হয়। অর্থাৎ একটা ভার্চুয়াল কম্পিউটার অনেক মানুষ ব্যবহার করে। যার ফলে মাঝে মধ্যে ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড কমে যায়, আবার একটু ভিজিটর বাড়লেই সাইট অফলাইন হওয়াসহ নানা জটিলতায় পরতে হয়। অন্যদিকে ভিপিএস হোস্টিং আপনার ব্যক্তিগত কম্পিউটারের মত। যেটা কিনলে ঐ ভার্চুয়াল কম্পিউটার যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে আপনি ব্যবহার করতে পারবেন । ঠিক ব্যক্তিগত কম্পিউটারের মতো। মাসে যদি মিলিয়ন ভিজিটর ও আসে আপনার সাইটের লোডিং স্পিড কমবে না।

ভিপিএস হোস্টিং (VPS Hosting):
VPS এর ফুল ফর্ম হলো (Virtual Private Server)। যখন একটা Computer কে বিশেষ কোন Software বা অন্য কিছু দিয়ে ভাগ করে অনেক গুলো Server তৈরি করা হয় তখন প্রত্যেক ভাগকে এক একটা VPS বলে। আশা করি বুঝতে পারছেন।

ভিপিএস হোস্টিং (VPS Hosting) সাধারণত শেয়ারড হোস্টিং (Shared Hositng) থেকে আলাদা কারণ এখানে হোস্টিং কোম্পানি আপনাকে আলাদা Ram, Hard Disk, CPU দিয়ে থাকে। মানে আপনার বাসার Personal Computer এর মত। মূলত তারা আপনার জন্য একটা আলাদা Computer এর ব্যবস্থা করে রেখে দিবে। তার মানে আপনার সাইট বেশি নিরাপদ থাকে এবং স্পিড ও ভালো থাকে। তারমানে এই না যে শেয়ারড হোস্টিং (Shared Hositng) নিরাপদ না, শেয়ারড হোস্টিং ও নিরাপদ তবে তা ভিপিএস থেকে একটু কম।

ভিপিএস হোস্টিং (VPS Hosting) এর বিভিন্ন সুবিধাঃ
শেয়ারড হোস্টিং ব্যাবহারকারি ওয়েবসাইটের থেকে ভিপিএস হোস্টিং ব্যাবহারকারি ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড অনেক বেশি থাকে।
শেয়ারড হোস্টিং এর মতো এক জায়গায় না হয়ে আলাদা Ram, Hard Disk, CPU হয়ে থাকে।
ভিপিএস হোস্টিং এ সিকিউরিটি বেশি থাকে যেহেতু এক হার্ড ডিস্কের মধেই শুধু আপনার সাইট থাকবে।
ভিপিএস হোস্টিং এ আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার এবং উচ্চ পারফরম্যান্সের হার্ডওয়ারসমূহ ওয়েবসাইট কে দ্রুতগতিসম্পন্ন এবং নিরাপদ করে।

ভিপিএস হোস্টিং (VPS Hosting) এর অসুবিধাঃ
দাম একটু বেশি হয়ে থাকে শেয়ারড হোস্টিং এর থেকে।
ডেডিকেটেড হোস্টিং এর মতো একটা কম্পিউটার পুরটাই একটা সার্ভার হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন না।